Get Even More Visitors To Your Blog, Upgrade To A Business Listing >>

১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা পুলিশের

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা করেছে পুলিশ। পুলিশের কাজে বাধা দেওয়া ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার রাতে শাহবাগ থানার এসআই মাজহারুল ইসলাম বাদী হয়ে এ মামলা করেন। শাহবাগ থানায় করা মামলায় এক হাজার ২০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

সংঘর্ষে আহত ছাত্রদের মধ্যে সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানকে আগারগাঁও জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সেখানকার আবাসিক সার্জন ডা. শ্যামল কুমার সরকার বলেন, ‘সিদ্দিকুরের দুই চোখে টিয়ার গ্যাসের শেলের আঘাত লেগেছে। তাই সে চোখে ভিশন পাচ্ছে না। দুই চোখের পাতা এত বেশি ফুলে আছে যে, ভেতরে কিছু দেখা যাচ্ছে না। অপারেশন লাগবে। এখন তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। ’ জানতেচাইলে তিনি বলেন, ‘শক্ত কিছু দ্বারা আঘাত করা হয়েছে। চোখের পিছনের হাড় ভেঙে গেছে। এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। ’

ছাত্রদের কর্মসূচিতে পুলিশের হামলার প্রতিবাদে আজ শনিবার সকালে অধিভুক্ত কলেজগুলোতে বিক্ষোভ কর্মসূচি এবং বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনরত কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিকেলে শাহবাগে ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ-সমাবেশের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান বলেন, পুলিশের কাজে বাধা দেওয়া এবং হামলা চালিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। আসামি করা হয়েছে ১২ শ জনকে।

পরীক্ষার ফল ও তারিখ ঘোষণাসহ সাত দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনের রাস্তায় অবস্থান নেয় অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। কলেজগুলো হলো-ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা কলেজ, তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল ইসলাম কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ ও মিরপুর বাঙলা কলেজ। সাড়ে ১১টার দিকে তাদের শাহবাগ ছেড়ে যেতে বলে পুলিশ। এরপর শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটওভার ব্রিজের পাশের অংশে অবস্থান নেন। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। তাদের মধ্যে  সিদ্দিকুর রহমান ও নাইমুল ইসলামকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। নাইমুল ইসলামকে নিউরোসার্জারি বিভাগের ১০০ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি এখন শঙ্কামুক্ত।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষে তিতুমীর কলেজের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থী রিয়াজ মাহমুদ জানান, শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশের হামলা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। পুলিশি হামলার পরে আবার পুলিশই ছাত্রদের নামে মামলা করেছে। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের কাছে অবিলম্বে ছাত্রদের কর্মসূচিতে পুলিশি হামলার বিচারসহ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। শনিবার (আজ) সকালে অধিভুক্ত কলেজগুলোতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে। বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ সমাবেশ হবে। আহত শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের চিকিৎসার ব্যয়ভারও সরকারকে বহন করার দাবিও জানান তিনি। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী শাহিন হোসেন, ইডেন মহিলা কলেজের হাজেরা খাতুন কেয়া, বাঙলা কলেজের সৈকত আমীন, কবি নজরুল কলেজের আসাদুজ্জামান নূর, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের রাকিব উদ্দিন প্রমুখ।

আজ বিকেল সাড়ে ৩টায় শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ ও সংহতি সমাবেশের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক এইচ এম রিয়াদ এক বিজ্ঞপ্তিতে জানান, ছাত্রদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে এবং পুলিশি হামলার প্রতিবাদে এই কর্মসূচি পালন করা হবে।



This post first appeared on Amr Bangla - 24/7 Online News Portal, please read the originial post: here

Share the post

১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা পুলিশের

×

Subscribe to Amr Bangla - 24/7 Online News Portal

Get updates delivered right to your inbox!

Thank you for your subscription

×