Get Even More Visitors To Your Blog, Upgrade To A Business Listing >>

Bangla Choti মায়ের প্রেম বিবাহ 2

Bangla Choti যাই হোক প্রায় একবছর এসব নিয়ে আর কোন কথা কারুর কাছ থেকে আমার কানে আসেনি। বঙ্কুও তেমন কোন নতুন খবর আর দিতে পারেনি। সত্যি বলতে কি মার মধ্যেও এমন কোন পরিবর্তন আমি দেখিনি যা দেখে মনে হয়েছে মা বঙ্কুর কথা মত সত্যি সত্যি আবার বিয়ে করতে রাজি হয়েছে। ছোটকাও সিনেমা, ক্রিকেট, পড়াশুনা আর গেঁজান নিয়ে আগের মতই ব্যাস্ত ছিল। আর আমি তো ব্যাপারটা একবারে প্রায় ভুলেই গেছিলাম।

সেদিন সকাল দশটা নাগাদ মা আমাদের বাড়ির উঠনের পাশের কলতলাটায় কাপড় কাচতে বসলো। আমাদের ছাত থেকে উঠনের কলতলাটা পুরোপুরি দেখা যায়। ছোটকা ওর বন্ধুদের সাথে ছাতে ঘুড়ি ওড়াচ্ছিল। আমিও ছাদে ছিলাম। ওদের থেকে একটু দূরে চিলেকোঠার ঘরের ভেতর বসে একটা মাসিক পত্রিকা পড়ছিলাম আর মাঝে মাঝে চিলেকোঠার ভেজান দরজার ফাঁক থেকে ওদের ঘুড়ি ওড়ানো দেখছিলাম। মাকে কলতলায় কাপড় কাচতে দেখে ছোটকার একটা বন্ধু বলে উঠলো -ওই দেখ পিকু তোর বউ ‘নমিতা ‘ এসে গেছে। আমি পত্রিকা পড়াতেই বেশি ব্যাস্ত ছিলাম, কিন্তু হটাত ছোটকার বন্ধুদের মুখে আমার মায়ের নাম শুনে অবাক হয়ে ওদের দিকে তাকালাম। ওরা জানতোই না যে আমি ওদের আগেই ছাতে এসেছি আর চিলেকোঠার ঘরের ভেজান দরজার ভেতর বসে আছি। ওরা আসলে কেউ আমাকে ছাতে উঠতে দেখেনি। ছোটকার আর একটা বন্ধু দিলুদা বললো “কি রে তোর বউদি কাম হবু বউ দিকে তো তোর দিকে একবার তাকিয়েই দেখলো না । এসেই কাপড় কাচতে বসে গেল। কোথায় তোর দিকে তাকিয়ে তোর নমিতা বউদি একটু মিষ্টি করে হেঁসে দু একটা ফ্লাইং কিস ফিস দেবে, আমরা দেখবো, তা না তুই ছাদে ঘুড়ি ওড়াচ্ছিস জেনেও তোর দিকে একবার তাকালো না।” এসব শুনে লজ্জায় ছোটকার মুখটা একবারে লাল হয়ে গেল। ছোটকা মিন মিন করে বললো -দাঁড়া সবে তো বউদিকে পটাতে শুরু করেছি, আগে ভাল করে তুলতে তো দে”। দিলুদা বললো -তুই কি করে বউদি পটাচ্ছিস আগে শুনি? ছোটকা বলে আমার তো একটাই স্টাইল। সারাদিন সুযোগ পেলেই বউদির চোখের দিকে এক দৃষ্টে তাকিয়ে থাকা। দিলুদা জিজ্ঞেস করে -কাজ হচ্ছে? ছোটকা বলে- হ্যাঁ মনে তো হচ্ছে বউদি ভাল ভাবেই উঠছে? কি করে বুঝলি নমিতা মাগি উঠছে , চোখে চোখ রাখলে লজ্জাটজ্যা পাচ্ছে বুঝি? ছোটকা মাথা নেড়ে বলে -হ্যাঁ রে, আগে বউদির চোখের দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে থাকলে বিরক্ত হয়ে মুখ ঘুরিয়ে নিত অথবা কটমট করে আমার দিকে তাকাতো। এখন কয়েকমাস তো দেখছি বিরক্ত তো হচ্ছেই না উলটে লজ্জায় মুখ নামিয়ে নিচ্ছে। এছাড়া যখন রোজ সকালে চান করে খালি গায়ে উঠনে দাড়িয়ে গা মুছি বউদি তখন রান্না ঘর থেকে রান্না করতে করতে আমার দিকে ঝাড়ি মারে। দিলুদা বলে –তাহলে তো মাল সত্যি সত্যি উঠছে রে। শোন পিকু আগে ভাল করে খেলিয়ে তোল, এখুনি খাব খাব করিস না। আগে ভাল করে ফাঁসিয়ে নে তারপর খাওয়া দাওয়া তো আছেই। অরুপদা বলে ছোটকার একটা বন্ধু বলে উঠলো -আরে এত তোলাতুলির কি আছে। আর তো একটা মাত্র বছর। দাঁড়ানা আগে সামনের বছর আমাদের পিকু গ্রাজুয়েসনের পরীক্ষাটা ভাল করে দিয়ে নিক। ওর মা তো বলেইছে যে পিকুর গ্রাজুয়েসনের পরীক্ষাটা হয়ে গেলেই নমিতা বৌদির সাথে ওর বিয়েটা সেরে নেবে। ওদের কথা শুনে যেন মাথায় বাজ পরলো আমার।



This post first appeared on Bangla Choti বাংলা চটি, please read the originial post: here

Share the post

Bangla Choti মায়ের প্রেম বিবাহ 2

×

Subscribe to Bangla Choti বাংলা চটি

Get updates delivered right to your inbox!

Thank you for your subscription

×